• শিরোনাম

    না ফেরার দেশে সাংবাদিক গোলাম সারওয়ার

    রানার ডেস্ক | রবিবার, ২৬ আগস্ট ২০১৮ | পড়া হয়েছে 194 বার

    না ফেরার দেশে সাংবাদিক গোলাম সারওয়ার

    সাংবাদিক গোলাম সারওয়ার

    একুশে পদকপ্রাপ্ত কিংবদন্তি সাংবাদিক, দৈনিক সমকালের সম্পাদক ও বিশিষ্ট গণমাধ্যম ব্যক্তিত্ব গোলাম সারওয়ার চলে গেলেন জীবনের অনিবার্য গন্তব্যে। ৭৫ বছর বয়সী এই বরেণ্য ব্যক্তিত্ব সিঙ্গাপুর জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় সোমবার (১৩ আগস্ট) বাংলাদেশ সময় রাত সাড়ে ৯টায় শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। বর্ষিয়ান সাংবাদিক গোলাম সারওয়ারের মৃত্যুতে দেশের গণমাধ্যমে নেমে এসেছে শোকের ছায়া।

    এদেশের সাংবাদিকতার উজ্জ্বল এক নক্ষত্র ছিলেন গোলাম সারওয়ার। মুক্তচিন্তা, প্রগতিশীল মূল্যবোধ আর মুক্তিযুদ্ধের পক্ষে সোচ্চার এ মানুষটির হাতে গড়া ন্যুনতম পাঁচ’শ সাংবাদিক বর্তমানে দেশের প্রিন্ট, অনলাইন ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ায় দক্ষতার সঙ্গে কাজ করে চলেছেন। আর এ কারণে তাকে অনেকেই সাংবাদিকতার শিক্ষক মানেন। গোলাম সারওয়ারের সম্পাদনায় আত্মপ্রকাশ করে দেশের শীর্ষ দুই সংবাদপত্র দৈনিক ‘যুগান্তর’ ও ‘সমকাল’।

    বরিশালের বানারীপাড়ার এক সম্ভ্রান্ত পরিবারে ‌১৯৪৩ সালের ১ এপ্রিল গোলাম সারওয়ারের জন্ম। বাবা মরহুম গোলাম কুদ্দুস মোল্লা ও মা মরহুম সিতারা বেগম। স্থানীয় স্কুল-কলেজে পড়াশোনার গন্ডি পেরিয়ে ভতি হন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগে। অনার্সে ছাত্র থাকাকালীন ১৯৬২ সালে চট্টগ্রাম থেকে প্রকাশিত দৈনিক পয়গামের বিশ্ববিদ্যালয় সংবাদদাতা হিসেবে সাংবাদিকতায় যুক্ত হন। ১৯৬৩ সালে মাস্টার্স শেষ করে সাংবাদিকতাকেই অবলম্বন হিসেবে বেছে নেন, দৈনিক সংবাদের সহসম্পাদক হিসেবে পেশাগত জীবন শুরু করেন। একাত্তরের সেই কালরাত্রি ২৫ মার্চ পর্যন্ত সংবাদেই কর্মরত ছিলেন।

    মুক্তিযুদ্ধের প্রথম প্রহরেই গোলাম সারওয়ার সীমান্ত পাড়ি দিয়ে আগরতলায় চলে যান। ট্রেনিং শেষ করে প্রথম গেরিলা ট্রুপের সদস্য হিসেবে সশ্রস্ত্র যুদ্ধ শুরু করেন। নিজ এলাকা বানারীপাড়ায় বীরত্বের সঙ্গে লড়াই করেন।

    মুক্তিযুদ্ধের পর বছর খানেক বানারীপাড়া ইউনিয়ন ইনস্টিটিউশনে প্রধান শিক্ষক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন গোলাম সারওয়ার। ১৯৭৩ সালের মাঝামাঝিতে আবারও ফিরেন সাংবাদিকতায়, দৈনিক ইত্তেফাকের সিনিয়র সহসম্পাদক হিসেবে যুক্ত হন। ১৯৯৯ সাল পর্যন্ত যথাক্রমে প্রধান সহসম্পাদক, যুগ্ম বার্তা সম্পাদক ও বার্তা সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেন।

    সত্তর দশকের মাঝামাঝিতে চলচ্চিত্রের সোনালী সময়ে ইত্তেফাকের ব্যবস্থাপনায় সাপ্তাহিক পূর্বাণী নামে একটি রঙিন সাময়িকী প্রকাশিত হতো। দীর্ঘদিন চলচ্চিত্র বিষয়ক ওই সাময়িকীর নির্বাহী সম্পাদকে দায়িত্ব পালন করেন গোলাম সারওয়ার। এ দেশের চলচ্চিত্রকে সাধারণ মানুষের কাছে জনপ্রিয় করে তুলতে চিত্রালী ও পুর্বাণী পত্রিকা ওই সময় বিশেষ ভূমিকা পালন করেন। চলচ্চিত্র সাংবাদিকদের সংগঠন ‘বাচসাস’-এর সাধারণ সম্পাদকও নির্বাচিত হয়েছিলেন তিনি।

    দেশের সংবাদপত্রশিল্পে আশির দশক থেকে বৃহৎ কলেবরে সাহিত্য সমৃদ্ধ ঈদসংখ্যা প্রকাশের রেওয়াজ শুরু হয়। সাপ্তাহিক পূর্বাণীতে প্রথম ম্যাগাজিন আকারে বৃহদায়তনের ঈদসংখ্যা তারই সম্পাদনায় প্রকাশিত হয়েছিল।

    দীর্ঘ দুই যুগ দৈনিক ইত্তেফাকে কর্মরত থাকার পর ১৯৯৯ সালে দৈনিক যুগান্তরের প্রতিষ্ঠাতা সম্পাদক হিসেবে যোগ দেন তিনি। ২০০৫ সালে প্রতিষ্ঠা করেন দৈনিক সমকাল। তিনি মৃত্যুর আগ পর্যন্ত এ পত্রিকার সম্পাদক হিসেবে কর্মরত ছিলেন। প্রকাশনার শুরু থেকেই গোলাম সারওয়ার প্রতিষ্ঠিত এ দুটি দৈনিক দেশের বহুল প্রচারিত সংবাদপত্রগুলোর মধ্যে অন্যতম।

    ষাটের দশকে সাংবাদিকতার শুরু থেকে টানা অর্ধশত বছর গোলাম সারওয়ার এই পেশায় মেধা, যুক্তিবোধ, পেশাদারিত্ব, দায়িত্বশীলতা, মুক্ত ও অসাম্প্রদায়িক চিন্তা-চেতনার নিরবচ্ছিন্ন চর্চাকে উৎসাহিত করে গেছেন। সংবাদপত্রের অন্যতম প্রধান স্তম্ভ বার্তা বিভাগে গোলাম সারওয়ারের সৃজনশীলতা, সংবাদবোধ ও তাৎক্ষণিক সিদ্ধান্ত নেওয়ার ক্ষমতা দৃষ্টান্ত তৈরি করেছে। তিনিই প্রথম এদেশে প্রতিদিন রঙিন খেলার পাতা, বিনোদন পাতা, নানা স্বাদের গুচ্ছ গুচ্ছ ফিচার প্রকাশ করার রীতি প্রবর্তন করে দৈনিক পত্রিকার চেনা অবয়বকে পাল্টে দিয়ে একটি দৈনিককে পরিবারের সব সদস্যের উপযোগী করে তোলার পরিকল্পনাকে সফলভাবে বাস্তবায়িত করেন।

    সাংবাদিকতার পাশাপাশি প্রচুর বই লিখেছেন গোলাম সারওয়ার। তার প্রকাশিত গ্রন্থের মধ্যে ছড়াগ্রন্থ রঙিন বেলুন’ এবং প্রবন্ধ সংকলন সম্পাদকের জবানবন্দি’, অমিয় গরল’, আমার যত কথা’, স্বপ্ন বেঁচে থাক’ উল্লেখযোগ্য।

    গণমাধ্যম ব্যক্তিত্ব গোলাম সারওয়ার বিভিন্ন সময় চলচ্চিত্র সেন্সর বোর্ডের সদস্য, বাংলাদেশ প্রেস ইনস্টিটিউটের (পিআইবি) চেয়ারম্যান ও জাতীয় প্রেসক্লাবের জ্যেষ্ঠ সহসভাপতির দায়িত্ব পালন করেন। তিনি ছিলেন সম্পাদকদের সংগঠন সম্পাদক পরিষদের সভাপতি।

    সাংবাদিকতায় বিশেষ অবদানের জন্য গোলাম সারওয়ার ২০১৪ সালে বাংলাদেশ সরকারের সর্বোচ্চ বেসামরিক সম্মান একুশে পদকে ভূষিত হন। এছাড়া তিনি ২০১৬ সালে কালচারাল জার্নালিস্টস ফোরাম অব বাংলাদেশ (সিজেএফবি) আজীবন সম্মাননাএবং ২০১৭ সালে আতাউস সামাদ স্মারক ট্রাস্ট আজীবন সম্মাননাঅর্জন করেন।

    Comments

    comments

    আপনার পছন্দের এলাকার খবর জানতে...

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    ২৩ এপ্রিল ২০১৭ | 1415 বার

    আজ বিশ্ব পঙ্গু দিবস

    ১৫ মার্চ ২০১৮ | 1023 বার

    আজ থেকে শুরু গৌরবময় বিজয়ের মাস

    ০১ ডিসেম্বর ২০১৭ | 1015 বার

    আজ শুক্রবার বাড়ি ফিরছে মুক্তামণি

    ২২ ডিসেম্বর ২০১৭ | 653 বার

    ০১ ফেব্রুয়ারি ২০১৭ | 602 বার

    আর্কাইভ

  • ফেসবুকে দ্যারানারনিউজ.কম